রংপুর-খুলনার টিকে থাকারলড়াই

 ক্রিস গেইলআংশিক দিয়েছেন, পুরোটা এখনো নয়।আর ব্রেন্ডন ম্যাককালাম? তাঁর কাছেচাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ এখনোসেভাবে মেলেইনি।

তবে এখন সেই সময় এসে উপস্থিত,যখন দুজনের কাছেই পুরোটা পাওয়ারদাবি রংপুর রাইডার্সের। কারণ জীবন-মরণ ম্যাচে পারফরম না করলে করবেনকখন? আজ যে এলিমিনেটর ম্যাচ।খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে আজ দুপুরেঅনুষ্ঠেয় এই ম্যাচ হারলেই তো টুর্নামেন্টথেকে পত্রপাঠ বিদায়। জিতলে সুযোগআছে ফাইনালে যাওয়ার। সন্ধ্যায়কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস ও ঢাকাডায়নামাইটসের মধ্যকার প্রথমকোয়ালিফায়ারে হেরে যাওয়া দলেরসঙ্গে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে জিতেফাইনালে যাওয়ার সুযোগ উন্মুক্তরাখতেই গেইল-ম্যাককালামদের চেনাছন্দে দেখাটা জরুরি রংপুর রাইডার্সের।

খুলনা টাইটানসে তাঁদের মতো অত বড়মহাতারকা নেই, আবার বিদেশিনির্ভরতাও এই দলটার খুব বেশি নেই।কারণ তাদের স্থানীয় ক্রিকেটাররাওআছেন দারুণ ছন্দে। ডাবল লিগভিত্তিকপর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে পয়েন্টটেবিলের শীর্ষ দল কুমিল্লাভিক্টোরিয়ানসকে হারিয়ে ‘ডু অর ডাই’ম্যাচের আগে দারুণ আত্মবিশ্বাসও সঙ্গীখুলনার। সেই সঙ্গে আছে বিপিএলেরগত আসরের প্রেরণাও।

সেবার এলিমিনেটর ম্যাচ জিতেফাইনালের পথে আরেক ধাপএগিয়েছিল তারা। যদিও রাজশাহীকিংসের কাছে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারেহেরে টুর্নামেন্টে তৃতীয় হয়েই সন্তুষ্টথাকতে হয়েছিল তাদের।

এবার তার চেয়েও এগোতে মরিয়াখুলনার জয় চাই-ই চাই। আবার নতুনমালিকানায় যাওয়া রংপুর রাইডার্সওবাজিমাত করতে চায়। তারকা মূল্যেবাজিমাত অবশ্য তাদের আগেই করাহয়ে গেছে। কিন্তু তারকাসুলভবিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে এখনো সেভাবেকোনো দলই ছারখারও হয়ে যায়নি।গেইল ইতিমধ্যে দুটি ফিফটি করেছেনবটে, তবে তাঁর কাছে আরো বড়ইনিংসের চাহিদা অস্বাভাবিক কিছু নয়।একেই বিপিএল ইতিহাসের সর্বোচ্চতিনটি সেঞ্চুরির মালিক তিনি, তারওপর এর দুটিই করেছেন ২০১২ সালেঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরসের হয়ে বিপিএলেরপ্রথম আসরে। একই দলের হয়ে পরেরআসরেও করেছেন আরেকটি। বিপিএলসর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসটিও (১১৬বনাম বরিশাল বার্নার্স) তাঁরই।

অথচ সেই গেইলেরই এবার সবশেষপাঁচ ম্যাচের স্কোর ১৬, ৩৩, ৫, ০ ও ৩৮!এখনো একটিও ফিফটি না পাওয়াম্যাককালামের সর্বোচ্চ ইনিংসটি ৪৩রানের। এখানকার উইকেটের সঙ্গেঅভ্যস্ত হতে লম্বা সময় নিয়ে ফেলাম্যাককালামের কাছে বড় কিছু দেখাটাএখন সময়ের দাবি। সেই দাবি এত দিনমেটাতে না পারলেও রংপুর ঠিকই সেরাচারে উঠে এসেছে নানা জনের বিচ্ছিন্নপারফরম্যান্সে। দুই ম্যাচে খোদঅধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকেব্যাট হাতে দলকে জেতানোর দায়িত্বনিতে হয়েছে। কখনো সে দায়িত্বনিয়েছেন রবি বোপারা তো কখনোমোহাম্মদ মিঠুন। তাতেই ফাইনালেযাওয়ার দৌড়ে রংপুর অগ্রবর্তী দলেরসদস্য হয়েছে।

তাদের মতো খুলনা অবশ্য বিদেশিদেরদিকে অতটা তাকিয়ে নেই। কারণতাদের স্থানীয় খেলোয়াড়রা পারফরমকরছেন। অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহঅন্তত দুটি ম্যাচে দলকে জেতাতেরেখেছেন বড় ভূমিকা। ঘরোয়াক্রিকেটের চেনা মুখ আরিফুল হকও‘ম্যাচ উইনার’ হিসেবে নিজেকে মেলেধরেছেন এই আসরে। সাকিব আলহাসানের পর উইকেট শিকারের দিকথেকে এই আসরের দ্বিতীয় সেরাবোলার আবু জায়েদ রাহিও দলকেসেরা

60 Views

Related posts

*

*

Top