King Salman’s “Vision 2030” বাদশাহ সালমানের“ভিশন ২০৩০” মহাপরিকল্পনার অনুমোদন, বিশ্বের অন্যতম বিত্তশালী ও সর্বাধিকতেল উৎপাদনকারী দেশ সৌদি আরব অর্থনৈতিক….

 বিশ্বের অন্যতম বিত্তশালী ও সর্বাধিক তেল উৎপাদনকারী দেশ সৌদি আরব অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে নিজস্ব তেলনির্ভরতা কমাতে এবং দেশের অর্থনীতির ক্রমোন্নয়নের লক্ষ্যে গত বছরের এপ্রিল মাসে দেশটির মন্ত্রিসভায় ‘ভিশন-২০৩০’নামে এক মহাপরিকল্পনার অনুমোদন করেছে। এই অর্থনৈতিক প্রকল্পের মাধ্যমে তেল বিক্রির ওপর দেশটির আর্থিক নির্ভরশীলতা সিংহ ভাগ কমে আসবে বলে আশা করছে পর্যবেক্ষকরা।

 

সৌদি আরবের রাজস্ব আয়ের ৭০শতাংশ আসে জ্বালানি তেল বিক্রি থেকে। তবে দুই বছরের বেশি সময় ধরে বিশ্ববাজারে তেলের দাম রেকর্ড পরিমাণ কমে যাওয়ায় সৌদির অর্থনীতিতে ভাঙন ধরেছে। গত বছরদেশটির তেল রপ্তানি আয় ২৩ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। এ জন্য তৈরি হওয়া ঘাটতি বাজেট কমাতে বিভিন্ন দেশথেকে ঋণ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ধনী এ দেশটি।

সৌদির বৃহৎ অর্থনৈতিক সংস্কার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এবং একটি সার্বভৌম তহবিল গঠনের নিমিত্ত রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল উৎপাদনকারী কম্পানি আরামকোর (Aramco) ৫শতাংশ শেয়ার বিক্রি করে দেওয়া হবে,যার বাজার মূল্য ২ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন ডলার। এই শেয়ার বিক্রি থেকে যে তহবিল গঠিত হবে তার পরিমাণ দাঁড়াবে দুই ট্রিলিয়ন ডলারে।আরামকোর এক-শতাংশ শেয়ারও যদিপুঁজি বাজারে ছাড়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়, তাহলে তা হবে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় প্রাথমিক দর প্রস্তাব (আইপিও)।এটি পুঁজি বাজারে ফেসবুক বা আলিবাবার শেয়ার বিক্রির রেকর্ডকেওছাড়িয়ে যাবে বলে আল-আরাবিয়্যারএকটি সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেন প্রিন্সমোহাম্মদ বিন সালমান।

অর্থনৈতিক উন্নয়ন পরিকল্পনার অংশহিসেবে ৫০ হাজার কোটি ডলার বা প্রায়৪০ লাখ কোটি টাকা ব্যয়ে দেশেরউত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে সাড়ে ২৬ হাজারবর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিস্তৃতএকটি মহানগর তৈরির পরিকল্পনাকরছে সৌদি সরকার, যা মিসর ওজর্দান সীমান্ত পর্যন্ত বিস্তৃত হবে।

অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে নতুন করে ঢেলেসাজানোর জন্য হাতে নেওয়া হয়েছেমহানগর ও অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরিরএ পরিকল্পনা।

গত আগস্টে ভিশন ২০৩০-এরপরিকল্পনাধীন একটি পর্যটন প্রকল্পেরযাত্রা শুরু করেছে সৌদি আরব। এরআওতায় রয়েছে ১০০ মাইল দীর্ঘবালুকাময় উপকূল ও ৫০টি দ্বীপেরএকটি উপহ্রদ।

সৌদি আরবের ভিশন ২০৩০ দেশটিকেবৈশ্বিক অর্থনীতির পরিবর্তনের এ সময়সম্ভাবনাময় ভবিষ্যতের দিকেই ধাবিতকরছে। এ সম্ভাবনাকে পূর্ণতায় রূপদিতে দেশটির পবিত্র শহর মক্কায় বেশকিছু পরিবর্তন নিয়ে আসা হবে, যাভিশন ২০৩০-এর জন্য অপরিহার্য। এক্ষেত্রে দেশটিকে এশিয়া, ইউরোপ ওআফ্রিকার কেন্দ্রভূমিতে পরিণত করারজন্য এবং দেশটিকে ব্যবসা-বাণিজ্যেরক্ষেত্রে পুরো পৃথিবীর মৌলিকপ্রবেশদ্বারে রূপান্তরিত করতে সৌদিআরব যে রোডম্যাপ তৈরি করেছে, তারমূলে প্রতিবছর হজ পালন করারবিষয়টি কাজ করছে। এটা খুবইবাস্তবসম্মত ও সময়ের সঙ্গে মানানসইদৃষ্টিভঙ্গি। ভিশন ২০৩০-কে কেন্দ্র করেমক্কাকে ফের সুবিন্যস্ত করে আঞ্চলিকও বৈশ্বিক বাণিজ্যের কেন্দ্রে রূপান্তরিতকরার প্রচেষ্টা চলছে। সৌদি আরবের যেসুযোগ-সুবিধা রয়েছে, তা অন্যদেশগুলোর নেই অথবা কখনো সম্ভবওহবে না। মক্কাকে ২০০ কোটি মানুষেরপবিত্র শহরে রূপান্তরিত করতে পারলেতা মুসলমানদের অর্থনৈতিক শক্তি ওসাংস্কৃতিক

213 Views

*

*

Top