Prophecy of the Prophet (s.o.s) about Mecca-Medina.মক্কা-মদিনা সম্পর্কে মহানবী(সা.)-এর ভবিষ্যদ্বাণী  গোটা বিশ্বেই আলোচনা চলছে সৌদি আরবের বর্তমান পরিস্থিতি…

 গোটা বিশ্বেই আলোচনা চলছে সৌদিআরবের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে । কেউকেউ একে ভালোভাবে দেখছে, আবারকেউ বিষয়টা নিয়ে সমালোচনা করছে।

 

অনেকে এ প্রসঙ্গে কোনো কোনোহাদিসও টেনে আনতে চাইছেন। আসলেকিয়ামতের আগে মক্কা-মদিনা বাবর্তমান সৌদি আরবের পরিস্থিতি নিয়েহাদিসে কী আছে, এখানে আমরা তা-ইখুঁজে বের করতে চেষ্টা করেছি।

ইমান মদিনার দিকে ফিরে আসবে :হজরত আবু হুরাইরা (রা.) সূত্রে বর্ণিত,রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই (কিয়ামতের পূর্বক্ষণে) ইমানমদিনা মুনাওয়ারার দিকে এমনভাবেপ্রত্যাবর্তন করবে, যেমন সাপ তারগর্তের দিকে ফিরে আসে। ’ (বুখারি :হাদিস ১৮৭৬)

মুসলিমরা মদিনায় একত্র হবে

হজরত আবু হুরাইরা (রা.) সূত্রে বর্ণিত,রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, (কিয়ামতের আগে) মদিনার বসতিবিস্তৃত হয়ে ‘ইহাব’ অঞ্চল পর্যন্ত পৌঁছেযাবে। বর্ণনাকারী জুহাইর বলেন, আমিআমার শিক্ষক সুহাইলকে জিজ্ঞেসকরলাম, তখন মদিনা কী পরিমাণবিস্তৃত হবে? তিনি বললেন, ‘অনেকমাইল বিস্তৃত হবে। ’ (সহিহ মুসলিম :হাদিস ২৯০৩)

হজরত ইবনে ওমর (রা.) সূত্রে বর্ণিত,রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘শিগগিরই মুসলিমরা (কাফেরদেরভয়ে) মদিনার দিকে এমনভাবে বেষ্টিতহয়ে যাবে যে তাদের সবচেয়ে দূরেরসীমানা হবে (খায়বারের নিকটবর্তীএলাকা) সালাহ নামক জায়গা। ’ (আবুদাউদ, হাদিস : ৪২৫০)

দাজ্জাল মক্কা-মদিনায় ঢুকতে পারবে না

হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) সূত্রেবর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘এমন কোনো শহর নেই, যেখানেদাজ্জাল প্রবেশ করবে না, তবে মক্কামুকাররমা ও মদিনা মুনাওয়ারা ছাড়া।কেননা মক্কা ও মদিনার প্রতিটিপ্রবেশপথে ফেরেশতারা সারিবদ্ধভাবেপাহারারত থাকবেন। তারপর মদিনাশরিফ তিনবার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে।

এতে সেখান থেকে সব কাফের ওমুনাফিক বের হয়ে যাবে। ’ (বুখারি,হাদিস : ১৮৮১)। হজরত আবু বাকরা(রা.) সূত্রে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.)ইরশাদ করেন, ‘মদিনা মুনাওয়ারায়মাসিহ দাজ্জালের প্রভাব পড়বে না,তখন তার সাতটি প্রবেশপথ থাকবে,প্রত্যেক প্রবেশপথে দুজন করেফেরেশতা পাহারারত থাকবেন। ’ (বুখারি, হাদিস ১৮৭৯)। হজরত আবুসাঈদ খুদরি (রা.) সূত্রে বর্ণিত, তিনিবলেন, ‘একদা রাসুলুল্লাহ (সা.)আমাদের দাজ্জাল সম্পর্কে দীর্ঘ বর্ণনাদেন। তাতে এ কথাও বলেন যে মদিনারপ্রবেশপথে দাজ্জালের প্রবেশ নিষিদ্ধথাকবে। সেদিন একজন মানুষ যে শ্রেষ্ঠমানুষদের অন্তর্ভুক্ত হবে, সে দাজ্জালেরকাছে গিয়ে বলবে যে আমি সাক্ষ্য দিচ্ছিযে তুমি ওই দাজ্জাল, যার ব্যাপারেআমাদের রাসুলুল্লাহ (সা.) সাবধানকরেছেন। দাজ্জাল তার সঙ্গীদেরবলবে, আমি যদি তাকে হত্যা করেআবার জীবিত করতে পারি, তবে কিতোমরা আমার প্রভুত্বে সন্দেহ করবে?তারা বলবে, না। তখন সে ওই ব্যক্তিকেহত্যা করে আবার জীবিত করবে। ওইব্যক্তি বলবে, আল্লাহর কসম! আমিএখন আরো নিশ্চিত হলাম যে তুমিদাজ্জাল। তখন দাজ্জাল বলবে, তাকেআমি হত্যা করব। কিন্তু সে আর তাকেহত্যা করতে সক্ষম হবে না। ’ (বুখারি,হাদিস : ১৮৮২)

 

154 Views

*

*

Top